বয়স, একটা উপলব্ধি

বিভিন্ন বয়সে নানান উপলব্ধি মনে ঘর করে , ক্রিয়া প্রতিক্রিয়া কেন্দ্রিক একটা অজানা ভয় গ্রাস করে , বাকিরা ভুল নয় কিন্তু নিজে ঠিক এটার জন্য যুক্তি জোগাড় করা চলে , এই খেলাতে মানুষ হারায়, নতুন মানুষ জোটে কিন্তু প্রবৃত্তি মিটে যায় না, শূন্যস্থান সময়ের সাথে অনেক কিছুই উপলব্ধিতে নিয়ে আসে, কিছু না চাওয়া মুহূর্তের সাথে জীবন ঠিকই চলতে থাকে।

উদাস পাখি

সমস্ত লড়াইতেই শেষ লড়াইটা ব্যক্তিত্তের, পারি না আর হয় না তেই অর্ধেক সমাধান আটকে অস্তিত্বে, কি হবে ভাঙলে, কি হবে গড়লে, চিন্তায় যদি আসে, উদাহরণযোগ্য পরিবর্তন সম্ভব, মুক্তি আর আনন্দের সাথে দেখা হবে প্রতি ক্ষনে।

কাল চৈত্রী

ভবিষৎ প্রজন্মের কথা ভেবে, ওরে কে আছিস, দরজা সামলা, পরিবেশ নিজের চরিত্র পাল্টাচ্ছে। 

দোটানায়

অনুশীলনের হাত ধরে সমাধানবিন্দুতে পৌঁছতে পারবে সবাই, ঠিক, যাত্রাপথ টুকু নিয়ে, দুশ্চিন্তা শুচিন্তা, সময়ের সাথে পাল্টে যাবে ঠিক। 

প্রিয়

লাইনের মাঝে লোকানোদের আবিষ্কার করো বেশি না ভেবে অভিমানী, শব্দের মাঝে থাকা শব্দগুলোর মানে বোঝো, যাতে সুনিশ্চিত হয় নিরাপত্তাহীনতার অনুপস্থিতি।

শৈলী

উপেক্ষাতে উপেক্ষিত সবার শেষে কথা বলে, কিছুজন সেই কথাতে, বেশ গর্ব অনুভব করে, সমাজের সমবেদনা, গর্ব আরো বাড়িয়ে তোলে, উপেক্ষিত এভাবেই চিরকাল উপেক্ষিত হতে থাকে

উত্তর দিতে হবে

উত্তর দিতে হবে, জাহির করতে হবে নিজেকে, নইলে ব্যক্তিত্বহীনতার পাশাপাশি না জানি আরো কত কি তকমার ভারই না বহন করতে হবে|

প্রকাশ্যে অপ্রকাশ্য

আত্মঅভিমান সারাটা বছর, প্রয়োজনে শুধু ক্ষনিকের বিসর্জন, ক্ষমতা ও মুদ্রা সকলের প্রিয়, দুইয়ের মাঝেই হোক প্রগতি আর বিবর্তন।

খেলা হবে

সবাই সন্তুষ্ট, সবাই আশাবাদী, নিজেদের চিন্তাধারায় কিছু নিবেশ না করেই নাকি হবে প্রগতি

মূল্যায়নের এক দৃষ্টিকোণ

মৃত্যুর পূর্বে বা মৃত্যুর পরে, কোনো ব্যক্তিত্বেরই যে হয় না, মূল্যায়নের আওতার অন্তরভূক্তি।

নবপ্রজন্মের ইতিকথা

নিরাপত্তাহীনতার চেয়েও নিজের কাছে হেরে যাওয়া আর স্বপ্নহত্যা সবচেয়ে বেশি কষ্টের, এই উপলব্ধি।

উপাদান

স্মৃতি ও কল্পনা জীবনের দুই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যা মানুষকে প্রাণিজগতের শিরোপা বানিয়েছে পরিচালনার ঘাটতিতে মানুষকে আবেগী ভারসাম্যহীনতার মুখে দাঁড় করিয়েছে, অনুকরণ নয় উপলব্ধি ও কৃতকর্মের কাছে মান্যতা সবাই পেয়েছে।

সবচেয়ে বড়ো ব্যাধি- উপেক্ষা

উপেক্ষা উপেক্ষিত হয়ে সমাজে বেঁচে আছে ঠিক, এর ফলাফল ভোগ করবো চুটিয়ে, শেষে আমি আপনি ঠিক।

মানুষ সভ্য ও সামাজিক প্রাণী

সম্প্রীতির বাসনা মুখে, কর্মে প্রশ্নচিহ্নের সামনে সভ্যতা।

সামাজিক সাধারণ

আজকের সমাজের বন্য সমাজে রূপান্তরণ , সবার মাঝে ধর্ষণ ও মানহানির ঘটনা খুবই ছোট্ট আর সাধারণ ?

আজকের ঋণাত্মকতা, সাথে প্রগতি

অন্যের প্রাপ্য উদ্বাস্তু নয়, ওটার প্রতি সচেতনতাই একমাত্র মাধ্যম যার ফলাফল বিশৃঙ্খলাহীন প্রগতি।

বিকল্প

মানসিক স্থিতির গুরুত্ব আজও সমাজে আসে না, আত্ম্যহত্যার হারের দিকে গুরুত্ব কি কারো পড়ে না?

সমালোচনা

আলোচনা, সমালোচনা, মন্তব্য ও অন্যকে ছোট করার ধারণার পার্থক্য, রচনা করতে পারে নতুন এক সমাজ, যা হবে প্রতিবাদী, সৃজনশীল ও ছোটদের নাগরিক গড়ে তোলার মধ্য।

বিভ্রান্তি

উদাসীনতা তোমার অভ্যেস, কাজ করাতে ক্লান্তি, ক্লান্তি কাজ করলে আসে, বাকি সবই বিভ্রান্তি।

অস্তিত্ব

ব্যক্তিত্বের মর্যাদার প্রেক্ষাপট যদি না থাকে তৈরী, বাস্তব পৃথিবীতে হারিয়ে যায় সেই সমস্ত যোদ্ধা, দার্শনিক ও মনীষী।

অস্তিত্ব ও নিরপেক্ষতা

অস্তিত্বের লড়াইতে আত্মঘাতী ও দূষিত আজ বেশিরভাগ পবিত্র অন্তরআত্মা।

মহামারী

দুশ্চিন্তাময় মহামারীতে আক্রান্ত আমার শহর,খবরের কাগজ আর স্বাস্থবিভাগ কেড়েছে সবার নজর,অক্লান্ত পরিশ্রম সত্ত্বেও পরিকাঠামো নজর এড়িয়েছে,দিন গুনছে আম জনতা, এই বুঝি চিকিৎসার নতুন ওষুধ বাজারে এসেছে, বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছেন মানুষ  চারপাশে, নানান ভয়ে ভীত,পিপিই কীটের ভেতরের মানুষগুলো আজ বেশ সন্ত্রস্ত,জীবন বাঁচানোর মাঝে ব্যর্থতা ও নিজের পরিবারের চিন্তা,কিছু জন আবার এই পরিস্থিতিতে মুনাফা কামানোর করছে… Continue reading মহামারী

আজকের সমাজ মাধ্যম

ঘাড়ের ওপরের এরূপ পুষ্টিতে আসছে নাতো, মস্তিষ্কে বিকৃতি??